নির্বাচিত সংবাদ!

মঙ্গলবার, ২৭ মার্চ, ২০১২

শিক্ষার্থীদেরকে কখন, কিভাবে ও কি ধরণের শাস্তি দিবেন ! (সরকার অনুমোদিত)

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক শাস্তি রহিত করণের জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় একটি পরিপত্র জারি করেছে যা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র-ছাত্রীদের শারীরিক ও মানসিক শাস্তি রহিত করা সংক্রান্ত নীতিমালা ২০১১ নামে পরিচিত নীতিমালাতে যে ধরণের শাস্তির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে তা হল -


০১শারীরিক শাস্তি :
শারীরিক শাস্তি বলতে যেকোন ছাত্র-ছাত্রীকে যেকোন ধরণের দৈহিক আঘাত করা বুঝাবে যেমন -

ক) কোন ছাত্র-ছাত্রীকে হাত-পা বা কোন কিছু দিয়ে আঘাত করা/করা

খ) শিক্ষার্থীর দিকে চক/ডাস্টার বা এ জাতীয় কোন বস্তু ছুড়ে মারা

গ) আছাড় দেয়া ও চিমটি দেয়া
ঘ) শরীরের কোন স্থানে কামড় দেয়া
ঙ) চুল ধরে টানা বা চুল কেটে দেয়া
চ) হাতের আঙ্গুলের ফাঁকে কলম চাপা দিয়ে মোচড় দেয়া
ছ) ঘাড় ধরে ধাক্কা দেয়া
জ) কান ধরে টানা বা উঠবস করানো
ঝ) চেয়ার, টেবিল বা কোন কিছুর নীচে মাথা দিয়ে দাঁড় করানো বা হাঁটু গেড়ে দাঁড় করানো
ঞ) রোদে দাঁড় করে বা শুইয়ে রাখা কিংবা সূর্যের দিকে মুখ করে দাঁড় করে রাখা
ট) ছাত্র-ছাত্রীদের দিয়ে এমন কোন কাজ করানো যা শ্রম আইনে নিষিদ্ধ করা হয়েছে


০২মানসিক শাস্তি :

কোন শিক্ষার্থীকে শ্রেণীকক্ষে এমন কোন মন্তব্য করা যেমন- মা-বাবা/বংশ পরিচয়/গোত্র/বর্ণ/ধর্ম ইত্যাদি সম্পর্কে অশালীন মন্তব্য করা, অশোভন অঙ্গভঙ্গি করা বা এমন কোন আচরন করা যা শিক্ষার্থীর মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করতে পারে
সকল সরকারি ও বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক বিদ্যালয়, উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজ. উচ্চ মাধ্যমিক কলেজ, কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মাদ্রাসা (আলিম পর্যন্ত) সহ অন্যান্য সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে এ নীতিমালা প্রযোজ্য হবে যা অমান্য করলে দন্ডনীয় অপরাধ বলে গণ্য হবে
কিছু কিছু ক্ষেত্রে দেখা যায় শাস্তি না দিয়ে পারা যায়না অনেক শিক্ষার্থীর অসদাচরণের জন্য শাস্তি দিতেই হয় কিন্তু মনে রাখতে হবে অবাঞ্চিত আচরণ দূর করার শেষ চেষ্টা হল শাস্তিদান শুধু তখন শাস্তি দেয়া যায়, যখন অনেক রকম কৌশল প্রয়োগ করেও শিক্ষার্থীকে প্রতিহত করা যায় না

শাস্তি দেয়ার আগে -
* শিক্ষার্থীর অন্যায় আচরণকে উপেক্ষা করার ভান করুন এসময় অন্য শিক্ষার্থীদের প্রশংসনীয় কাজকে সমর্থন করুন
* নিয়ম ভঙ্গকারী কোন শিক্ষার্থীকে আপনি পছন্দ করেন না এটা যেন শ্রেণীর সকল শিক্ষার্থী বুঝতে পারে দেখবেন অনেকেই নিয়ম ভঙ্গকারী শিক্ষার্থীকে সাময়িকভাবে দল হতে বর্জন করবে
* আপনার আলোচিত বিষয়বস্তুতে আপনি স্থির থাকুন
* কিছু ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীর সংশোধনের জন্য সময় লাগে, ধৈর্য হারাবেন না শিক্ষার্থীর অন্যায় আচরণকে এক মুহূর্তের জন্যও আমল দেবেন না

দীর্ঘ সময় ধরে এ ধরণের কৌশল প্রয়োগের পরও যদি শিক্ষার্থীর মধ্যে কোন পরিবর্তন না আসে, তবে তাকে শাস্তি দিন

কিন্তু শাস্তি দেওয়ার আগে ভাবুন -
* শাস্তির ফলাফল কী হবে ?
* শিক্ষার্থীর আদৌ কোন ইতিবাচক পরিবর্তন হবে কিনা ?
* তার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা আছে কিনা ?
* অন্যান্য শিক্ষার্থীর মধ্যে এর কি ধরণের প্রতিক্রিয়া হবে ?

এসব কিছু ভেবে নিয়ে যদি দেখেন শ্রেণীশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য এবং শিখন পরিবেশ বজায় রাখার জন্য শাস্তি দেয়া জরুরি, তখন শিক্ষার্থীর অপরাধের মাত্রার উপর নির্ভর করে -

* মৃদু ভর্সনা করুন
* কঠোর তিরস্কার করুন
* তার কাজে অস্বীকৃতি জ্ঞাপন করুন
* শ্রেনী থেকে তাকে সাময়িকভাবে বর্জন করুন
* শ্রেনীর বাইরে রাখুন
* আনন্দ থেকে বঞ্চিত করুন
* মাসিক পরীক্ষার মোট নম্বর থেকে ১/২ নম্বর কমিয়ে দিন


সূত্র :

আবশ্যকীয় শিক্ষন দক্ষতা (মডিউল ১ ও ৩)
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
টিচিং কোয়ালিটি ইমপুভমেন্ট ইন সেকেন্ডারি এডুকেশন প্রজেক্ট
মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর
শিক্ষা মন্ত্রণালয়