নির্বাচিত সংবাদ!

শুক্রবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১১

প্রহর শেষের আলোয় রাঙ্গা সেদিন চৈত্রমাস তোমার চোখে দেখেছিলাম আমার সর্বনাশ-৩


Attachment
এই Attachment বা commitment পর্যায়টা হলো প্রেমের চূড়ান্ত পরীক্ষার ধাপ | কুসুম কুসুম, উড়ু উড়ু ভালবাসার ধাপ পেরিয়ে প্রেম এবার আসে সত্যিকারের প্রেমের পর্যায়ে | যেখানে দায়িত্ব, নির্ভরতা, সহনশীলতা, আপোস এইসব বিশেষনগুলো পরীক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয় | প্রেমে পড়া মানুষ
দুটো এবার পরস্পরকে দেখতে শুরু করে rational এবং logical ভাবে | স্বভাবতই, এর ফলে তৈরী হয় অনেকরকমের সামাজিক, পারস্পরিক সমস্যা | এই ধাপেই সিদ্ধান্ত হয় যে প্রেমটা শেষ পর্যন্ত টিঁকবে কি না | University of Minnesota গবেষকরা দেখিয়েছেন, আমরা আমাদের ভালবাসার মানুষকে যত বেশি আদর্শ হিসাবে নিতে পারি বা ভাবতে পারি, এই পর্যায়ে প্রেম তত বেশি পোক্ত হয় |
University of Texas গবেষকরাও এই বিষয়ে একমত | তাদের বক্তব্য, ভালবাসার মানুষকে idealize করার মানসিকতা, অর্থাৎ, সেই আমার জন্য ঠিক, তার সব কিছুই আমার ভালো লাগে, সে সব দিক থেকে আমার জন্য উপযুক্ত, এইধরনের 'আদর্শায়িত' করার প্রবণতা সেই মানুষ দুটোকে একসাথে জুড়ে রাখার জন্য মোক্ষম |
তারা আরো বলেছেন, যে সম্পর্কে মানুষদুটো ভাবতে শুরু করে যে তার সঙ্গী বা সঙ্গিনী তার থেকেও বেশি সহযোগিতাপূর্ণ, বেশি ইতিবাচক মনোভাবের; সেই সম্পর্ক তত বেশি শক্ত | এই ভাবনাটা আসবে আপনাআপনি; শুধু ভাবার জন্য ভাবা নয় |
রাসায়নিক কারণ
লবাসার প্রাথমিক পর্যায়ে হোক কিংবা সেটা যখন দীর্ঘস্থায়ী বন্ধনের দিকে গড়ায়ে; যেকোনো ক্ষেত্রেই মানুষের শরীর - মন জুড়ে নানারকমের রস বা রাসায়নিকের খেলা চলতে থাকে | বিজ্ঞানীরা আধুনিক বিজ্ঞানের সাহায্যে দিনে দিনে আরো নতুন নতুন তথ্য, রহস্যময় কার্যকলাপের আরো নতুন নতুন দিক উন্মোচন করছেন |
তবে নিঃসন্দেহে estrogen আর testosterone শুরুর দিকে ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয় | মানুষের আগ্রাসী কাম-তাড়নার উদ্রেক করে এই রাসায়নিক দুটো হয়ত শুধুই বিপরীত লিঙ্গের মানুষের দিকে আকর্ষণ বৃদ্ধি করে কিন্তু এটাও ঠিক তার ফলেই মানুষ একটা দীর্ঘস্থায়ী, সত্যিকারের সম্পর্কের দিকে সূচিত হয় |
প্রেমের প্রথমদিকে যে মাথা ঝিম ঝিম ভাব, হৃদস্পন্দন বেড়ে যাওয়া, গাল - কান লাল হয়ে যাওয়া, হাতের তালু ঘেমে যাওয়ার উপসর্গ গুলো দেখা যায়; বিজ্ঞানীদের মতে সেসবের পেছনে দায়ী হলো Dopamine( ডোপামিন ), Norepinephrine( নরেপিনেফ্রিন ) আর Phenylethylamine( ফিনাইল-ইথাইল-এমিন ) |
এদের মধ্যে Dopamine কে বলা হয় সুখের অনুভূতি জাগানোর রাসায়নিক বা "সুখ-রস" | যখন আমাদের সাথে কোনধরনের সুখময় বা আনন্দের ঘটনা ঘটে তখন এই Dopamine মস্তিস্কে ক্রিয়াশীল হয় ফলে আমরা সুখের অনুভূতি পাই | প্রসঙ্গক্রমে বলি, কোনো কৃত্রিম উপায়ে যদি এমন করা যায় যে কোনো খারাপ ঘটনা ঘটলেও আমাদের Dopamine নির্গত হবে; তাহলে দেখা যাবে আমরা দুঃখেও হাসছি বা খুশি হচ্ছি | সবই রসের খেলা !
মানুষ যখন কোনকারনে উত্তেজিত হয়, যেমন, খেলার সময়, ভয় পেলে, দুর্ঘটনা ঘটলে, এসব সময়ে মানুষের শরীরে Adrenaline( এডরেনালীন ) কাজ করতে শুরু করে | এর প্রভাবে মানুষের হৃত্স্পন্দন বেড়ে যায় অস্বাভাবিকরকম, নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস দ্রুত হয়ে যায় এবং আরো নানা শারীরবৃত্ত্বিয় পরিবর্তন ঘটে যাতে মানুষ চরম পরিস্থিতির মোকাবেলা করতে পারে | প্রেমের প্রাথমিক পর্যায়ে নির্গত Norepinephrine এই ধরনের কাজই করে | Rutgers University বিখ্যাত নৃতত্ববিদ Helen Fisher এর মতে, এইসব রাসায়নিকের মিলিত প্রভাবেই প্রেমের প্রাথমিক লক্ষনগুলো - ঘুম না হওয়া, মনের মানুষের জন্য কোনো কাজে অদম্য উত্সাহ আর শক্তি, নিদ্রাহীনতা, 'তাকে' পাওয়ার মরণপণ ইচ্ছা, শুধু 'তার' ভাবনা - এসব দেখা যায় |
মনের মানুষটাই ধ্যান-জ্ঞান, সেই সবকিছু, তার থেকে ভালো আর কেউ নেই, তার সবই ঠিক - এই যে আপাত খাপছাড়া আচরণগুলো, এর পেছনেও ব্যাখা বের করেছেন University College London এর গবেষকরা |
তারা দেখেছেন, প্রেমে পড়া মানুষদের শরীরে Serotonin থাকে খুব কম মাত্রায় | এটা কম থাকলে সমস্যা কি ? সমস্যা হলো, কম মাত্রার Serotonin থাকে সেইসব লোকেদের যারা obsessive-compulsive disorder নামের মানসিক রোগের শিকার | এই রোগাক্রান্ত মানুষদের মনের ভেতর নিজের অজান্তেই অনেক আজগুবি, ভিত্তিহীন, কাল্পনিক ভাবনা ঢুকে পড়ে | পারিপার্শ্বিক ঘটনা, মানুষ, বস্তু সম্পর্কে তারা মনের মধ্যে একধরনের পূর্বনির্ধারিত ধারণা পোষণ করতে শুরু করে | ফলে তাদের আচার আচরণ অস্বাভাবিক হয়ে পড়ে | কোনো কারণ ছাড়াই বার বার হাত ধোওয়া, ঘর থেকে বের হওয়া বা ঢোকার সময় বার বার দরজা খোলা-বন্ধ করা এইসব হচ্ছে ওই রোগের লক্ষণ | এই রোগের মানুষরা নিজেদের ধারণার বশবর্তী হয়ে পড়ে | বের হতে পারেনা নিজেরদের ভাবনার ঘের থেকে | এরকম কারণেই প্রেমে পড়া মানুষরাও নিজেদের সঙ্গী বা সঙ্গিনী সম্পর্কে obsessed হয়ে পড়ে | তাকে ছাড়া আর কিছু ভাবতে পারেনা |
গবেষকরা দেখিয়েছেন আরো একটা কারণে এই obsession এর জন্ম হয় |
আমাদের মস্তিস্কের এক একটা অংশ আলাদা আলাদা দায়িত্ব পালন করে | মস্তিস্কের একটা অংশ থাকে যেটা আমাদের পারিপার্শ্বিক মানুষদের আচার-ব্যবহার বিশ্লেষণ করতে সাহায্য করে | প্রেমে পড়া মানুষদের মস্তিস্কের সেই অংশটা অনেকটাই নিস্ক্রিয় থাকে | ফল আমাদের চোখের সামনেই !
University of California গবেষকদের মতে, Oxytocin হরমোনের কারণে মানুষ সক্ষম হয় অন্য মানুষদের সাথে সুস্থ্য সামাজিক সম্পর্ক তৈরী করতে, সুস্থ্য মানসিক সম্পর্কের বাতাবরণ তৈরী করতে | মা যখন সন্তানের জন্ম দেয় বা শিশুকে বুকের দুধ পান করায় তখন মায়ের শরীরে এই হরমোন নির্গত হতে থাকে , ফলে মায়ের সাথে শিশুর বন্ধন আরো মজবুত হতে থাকে |
এছাড়াও, যখন নারী-পুরুষ যৌন সংসর্গে লিপ্ত হয় তখন সেই সময় তাদের শরীরে Oxytocin বের হতে থাকে বহুল পরিমানে | স্পষ্টই এবার বোঝা যাচ্ছে যে, প্রেমে পড়া দুটো মানুষ শারীরিক মিলন করলে তাদের মধ্যেকার মানসিক বন্ধন আরো শক্ত হতে থাকবে এই হরমোনের প্রভাবে | মিলন যত বেশি হবে, বন্ধনও তত বাড়বে |
একজন মাত্র সঙ্গীর সাথেই দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্ক তৈরিতে প্রভাব ফেলে Vesopressin আর Endorphin নামের আরো দুটি হরমোন | Endorphin নির্গত হয় যৌন মিলনের সময় | Endorphin হলো শরীরের নিজস্ব ব্যথা-নিবারক | শরীরের কোনো স্থানে আঘাত লাগলে এই Endorphin বের হয় আর ব্যথা উপশমে সাহায্য করে | শুধু যৌন মিলন নয়, এমনকি ভালো লাগার মানুষের সান্নিধ্যে থাকলেও Endorphin বের হয় | এছাড়াও খেলাধুলা বা ব্যায়ামের সময়ও এই হরমোন বের হয়ে শরীরে একটা তরতাজা, সুস্থ্য অনুভূতি তৈরী করে |
শেষ পর্যন্ত টিঁকে যাওয়া
সবশেষে আসে প্রেমের প্রতিষ্ঠার পর্যায় | যাকে বিবাহ বা live - together বা একসাথে থাকা যাই বলা হোকনা কেন, আদতে সেটা হচ্ছে প্রেমের একটা স্থায়ী পরিনতি | এই পর্যায়ে এসে প্রধানত যেটা হয়, প্রেমের প্রাথমিক পর্যায়ের উচ্ছাস হারিয়ে যেতে থাকে | সমীক্ষায় দেখা গেছে প্রেমের প্রথম দিকের আবেগ, উদ্দামতা ধীরে ধীরে ফিকে হয়ে যায় - বছরের মধ্যেই | কেন? আচমকাই মনের মানুষের খুঁত চোখে পড়তে শুরু করে | আপনি ভাবতে শুরু করেন, আমার মনের মানুষের এরকম পরিবর্তন হয়ে গেল কেন ?
সিনেমা, নাটকে এমনকি নিজের জীবনেও এরকম উক্তির সাথে আমরা পরিচিত : "তুমি আর আমাকে আগের মত ভালবাসনা", "আমি আর আগের মত তোমার চোখে সুন্দর নেই", "আগে আমরা কত সুখে ছিলাম" |
আসলে তখন যা হয় সেটা হলো, প্রেমের আবেগ সৃষ্টিকারী রাসায়নিকগুলোর প্রভাব সয়ে যেতে শুরু করে | অনেকটা মাদক-দ্রব্যের প্রভাবের মতই | মাদকাসক্ত লোকের যেমন দিন দিন মাদকের পরিমান না বাড়ালে আর ভালো লাগেনা, তেমনি এখানেও "প্রেম-প্রেম ভাব" তৈরী করা রাসায়নিকগুলোর শরীরের ওপর প্রভাব প্রশমিত হয়ে আসতে থাকে | তখন মনের মানুষকে আর অন্ধভাবে না দেখে rationally দেখতে শুরু করে মানুষ | তাই তখন মনে হয় "সে" আর আগের মত নেই; আদতে "সে" কিন্তু তেমনি আছে যেমন সে ছিল প্রথম থেকেই | পাল্টে গেছে শুধু দেখার ধরন |
এই পর্যায়ে এসে হয় প্রেম টিঁকে গিয়ে শাশ্বত হয়ে যায় অথবা সম্পর্ক ভেঙ্গে গিয়ে জন্ম দেয় "লাইলী-মজনু" সম্প্রদায়ের নতুন সদস্য বা সদস্যা
আর এই চরম পর্যায়ে প্রেম টিঁকে থাকার ভিত কিন্তু তৈরী হয়ে যায় সেই প্রাথমিক পর্যায়েই | গবেষকরা বলেন, প্রেমের প্রথম পর্যায় যত বেশিদিন ধরে চলে সেইসব সম্পর্কই শেষ পর্যন্ত টিঁকে থাকার সম্ভাবনা বেশি | প্রাথমিক পর্যায়ে যত বেশি এই ভাবনা প্রবল থাকবে - "একে ছাড়া আমার চলবেনা", "এইই আমার সবচেয়ে প্রয়োজন", "এই আমার আদর্শ মানুষ" - তত বেশি সম্ভাবনা সেই সম্পর্ক টিঁকে যাবার |
আর সব বাধা বিঘ্ন পেরিয়ে যদি প্রেম টিঁকে যায়, তাহলে এরপর অন্যান্য আরো রাসায়নিক উপস্থিত হয় নতুন নতুন অনুভূতির জন্ম দিয়ে সম্পর্ককে চালিয়ে নিয়ে যাবার জন্য | Endorphin এর প্রভাব তখনও থেকে যায়; যা কিনা ভালো থাকার অনুভতির যোগান দিয়ে যায় | শারীরিক মিলনের সময় তখনও Oxytocin বের হয় satisfaction আর attachment এর অনুভূতিকে অক্ষুন্ন রাখার জন্য |
(উপসংহারে, লেখক নয় একজন প্রেমিক হিসাবে বলতে চাই : বিজ্ঞানের নিয়মে যদি প্রেম চলত, তাহলে তাকে আর প্রেম বলতামনা; তাকে বলতাম "থিওরি অফ প্রেমেটিভিটি" | হাঃ হাঃ হাঃ !!!
বিজ্ঞান আমাদের শরীর থেকে সব হরমোন নিংড়ে বের করে নিলেও ; আমরা ঠিক পৌছে দেব আমাদের মনের মানুষের কাছে রক্তগোলাপ)