বুধবার, ২২ জুন, ২০১১

খেলাধুলা-১


এক নজরে বিশ্ব ক্রীড়া সংস্থা:
> সংস্থা/সংগঠন : ফিফা
প্রতিষ্ঠাকাল : ২১ মে ১৯০৪
সদর দপ্তর : জুরিখ, সুইজারল্যান্ড
সদস্য সংখ্যা : ২০৮
> সংস্থা /সংগঠন : আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল
প্রতিষ্ঠাকাল :  ১৫ জুন ১৯০৯
সদর দপ্তর : দুবাই, সংযুক্ত আরব আমিরাত
সদস্য সংখ্যা : ১০৪
> সংস্থা /সংগঠন : আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি
প্রতিষ্ঠাকাল :  ২৩ জুন ১৮৯৪
সদর দপ্তর : লুজান, সুইজারল্যান্ড
সদস্য সংখ্যা : ২০৫
> সংস্থা /সংগঠন : এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন
প্রতিষ্ঠাকাল :  ১৯৫৪
সদর দপ্তর : কুয়ালালামপুর, মালয়েশিয়া
সদস্য সংখ্যা : ৪৬
> সংস্থা /সংগঠন : এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল
প্রতিষ্ঠাকাল :  ১৯৮৩
সদর দপ্তর : কুয়ালালাপুর, মালয়েশিয়া
সদস্য সংখ্যা : ২২
> সংস্থা /সংগঠন : আন্তার্জাতিক অ্যাসোসিয়েশন অব অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন
প্রতিষ্ঠাকাল :  ১৯১২
সদর দপ্তর : মোনাকো
সদস্য সংখ্যা : ২১২
> সংস্থা /সংগঠন : আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশন
প্রতিষ্ঠাকাল :  জানুয়ারি ১৯২৪
সদর দপ্তর : লুজান, সুইজারল্যান্ড
সদস্য সংখ্যা : ১২৭
> সংস্থা /সংগঠন : আন্তর্জাতিক হ্যান্ডবল ফেডারেশন
প্রতিষ্ঠাকাল :  ১১ জুলাই ১৯৪৬
সদর দপ্তর :
সদস্য সংখ্যা : ১৫৯
> দর্শক ধারণ ক্ষমতায় বিশ্বের বৃহত্তম স্টেডিয়াম
--ইন্ডিয়ানাপোলিস স্পিডওয়ে স্টেডিয়াম অবস্তান স্পিডওয়ে, যুক্তরাষ্ট্র, প্রতিষ্ঠা ১৯০৯ ধরন রেস ধারণ ক্ষমতা ,৫০,০০০ জন
> দর্শক ধারণ ক্ষমতায় বিশ্বের বৃহত্তম ফুটবল স্টেডিয়াম
--বংগ্রাডো মে ডে স্টেডিয়াম অবস্তান পিয়ংইয়ং, উত্তর কোরিয়া ধারণ ক্ষমতা ,৫০,০০০ জন 
কাবাডি খেলার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য :
> কাবাডি খেলা সর্বপ্রথম শুরু হয় : ভারতে
> কাবাডি খেলায় প্রতিদলে খেলোয়াড় : ১২ জন
> প্রথম এশিয়ান কাবাডি টুনামেন্ট অনুষ্ঠিত হয় : কোলকাতায় (১৯৮০ সালে)
> এশিয়ান গেমসে প্রথম কাবাডি অন্তভূর্ক্ত হয় : ১৯৯০ সালে
> কাবাডি খেলা সাফ গেমসের অন্তর্ভূক্ত করা হয় : ঢাকা সাফ গেমসে (১৯৮৫ সালে)
> বাংলাদেশের জাতীয় খেলার নাম : কাবাডি
> কাবাডি খেলায় মাঠের পরিমাপ : ১২. মিটার বাই ১০ মিটার
> কাবাডি খেলায় ব্যবহৃত শব্দ : লোনা, লবি ইত্যাদি
> প্রথম বিশ্বকাপ কাবাডি অনুষ্ঠিত হয় : ১৯-২১ নভেম্বর ২০০৪; ভারতে
> প্রথম বিশ্বকাপ কাবাডিতে চ্যাম্পিয়ন রানার্সআপ হয় : যথাক্রমে ভারত ইরান
জিমন্যাষ্টিক:
>আন্তর্জাতিক জিমন্যাষ্টিক ফেডারেশন গঠিত হয় : ১৮৮১ সালে লেইজ, বেলজিয়াম
>জিমন্যাষ্টিক অলিম্পিকের অন্তর্ভূক্ত হয় : ১৮৯৬ সালে
সাঁতার:
>সাঁতারকে একটি খেলা হিসেবে পরিচিত করেন : জাপানের সম্রাট সুইজিন (৩৬ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে)
>সর্বপ্রথম আন্তর্জাতিক সাঁতার প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় : ১৮৪৬ সালে অষ্ট্রেলিয়ার সিডনিতে
>অলিম্পিক প্রতিযোগিতায় প্রথমবারের মতো সাঁতার অন্তর্ভূক্ত হয় : ১৮৯৬ সালে, এথেন্সে
>আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সাঁতার নিয়ন্ত্রণ করে : Federation International de Nation Amateure.
>অলিম্পিক সাঁতার প্রতিযোগিতায় নারীরা অংশ নেয় : ১৯১২ সালে
>আন্তর্জাতিক সাঁতার চ্যাম্পিয়নশিপ প্রতিযোগিতা শুরু হয় : ১৯৭৩ সালে
>বিশ্ব সাঁতার চ্যাম্পিয়নশিপে সবচেয়ে বেশি পদক জয় করেন : সাবেক পূর্ব জার্মানির এন্ডার
>অলিম্পিক সাঁতারে সর্বাপেক্ষা বেশি স্বর্ণ পদক জয় করেন : মাইকেল ফেলপস (১৪টি)
>সর্বপ্রথম ডুব সাঁতার দিয়ে ইংলিশ চ্যানেল পার হয়েছিল : ফ্রেড ব্যালডাসারে (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র)
>সর্বপ্রথম সাঁতারে ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিয়েছিলেন : ম্যাথিউ ওয়েব (ইংল্যান্ড), ১৮৭৫ সালে
>সর্বপ্রথম (নারী) ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দেন : গারট্রডে এডারলে (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র), ১৯২৬ সালে
>অলিম্পিক সাঁতারে প্রথম স্বর্ণবিজয়ী : আলফ্রেড হ্যাজাস (হাঙ্গেরি), ১৮৯৬ সালে
>সর্বপ্রথম সাঁতার কেটে আটলান্টিক সাগর পাড়ি দেন : বোনোই লেকোমতে, তিনি ফ্রান্সের নাগরিক
ভলিবল খেলার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:
> ভলিবল খেলার উৎপত্তি : আমেরিকায়
> ভলিবল কোর্টের মাপ : ৬০ ফুট ক্ম ৩০ ফুট
> মাটি থেকে ভলিবলের নেটের উচ্চতা : ফুট (প্রায়)
> ভলিবল খেলায় প্রতি দলে খেলোয়াড় থাকে : জন
> অলিম্পিকে ভলিবল অন্তর্ভূক্ত করা হয় : ১৯৬৪ সালে
> ভলিবল বিশ্ব লিগ শুরু হয় : ১৯৯০ সালে
> ভলিবল ওয়াল্ড গ্রান্ড চ্যাম্পিয়নস কাপ শুরু হয় : ১৯৯৩ সালে
> ভলিবল বিশ্বকাপ শুরু হয় : ১৯৬৫ সালে
> ভলিবল বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হয় : ১৯৪৯ সালে (অনুষ্ঠিত হয় বছর পর পর)
হ্যান্ডবল খেলার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:
> হ্যান্ডবল খেলার প্রবর্তক : হোলজার নেলসন
> হ্যান্ডবল খেলার মাঠের পরিমাপ : ৪০ * ২০ মিটার
> হ্যান্ডবল খেলার গোলপোষ্টের মাপ : বিস্তার মিটার, উচ্চতা মিটার
> প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষদের হ্যান্ডবল খেলার সময়সীমা : ১০ মিনিট বিরতিসহ ৭০ মিনিট
> মহিলাদের হ্যান্ডবল সর্বপ্রথম অন্তর্ভূক্ত হয় : মন্ট্রিল অলিম্পিকে (১৯৭৬ সালে)
> প্রথম আন্তর্জাতিক হ্যান্ডবল প্রতিযোগিতা যে দুটি দেশের মধ্যে অনুষ্ঠিত হয় : অষ্ট্রিয়া-জার্মানীর মধ্যে অনুষ্ঠিত হয় এবং খেলায় অষ্ট্রিয়া জয়লাভ করে
বাস্কেটবল খেলার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:
> বাস্কেটবলের জনক : . জেমস নেইল স্মিথ
> বাস্কেটবল খেলার সূচনা হয় : আমেরিকায়
> বাস্কেটবল খেলার জন্ম : ১৮৯১ সালে, যুক্তরাষ্ট্রে
> বাস্কেটবল কোর্টের মাপ সর্বাধিক : ৮৫ ফুট * ৪৫ ফুট
> বাস্কেটবলে বাস্কেটের উচ্চতা : ১০ ফুট
> আন্তর্জাতিক মানের একটি বাস্কেটবল ম্যাচের সময় : বিরতিসহ ৭০ মিনিট
> বাস্কেটবল প্রতিযোগিতায় প্রত্যেক দলে খেলোয়াড়ের সংখ্যা : জন
> বাস্কেটবলের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হয় : ১৯৫৮ সালে
> বিশ্ব অলিম্পিকে বাস্কেটবল অন্তর্ভূক্ত হয় : ১৯৩৬ সালে
দাবা খেলার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:
> দাবা খেলার উৎপত্তি : ভারতে
> দাবা খেলার আদি নাম : চতুরঙ্গ
> বিশ্ব দাবার সর্বোচ্চ সংস্তার নাম : ফিদে (FIDE ); প্রতিষ্ঠা ২০ জুলাই ১৯২৪
> আইসিএফ (ICF)-এর পূর্ণরূপ : ইন্টারন্যাশনাল চেস ফেডারেশন
> বাংলাদেশে গ্রান্ড মাষ্টার খেতাব অর্জনকারী প্রথম দাবাড়- : নিয়াজ মোর্শেদ
> গ্যারি কাসপারভ যে কম্পিউটারের কাছে হেরে যান তার নাম : ডিপ ব্লু
> দাবায় সর্বোচ্চ খেতাব : গ্রান্ড মাষ্টার
> দাবায় প্রতি মাষ্টার খেতাব অর্জনকারী উপমহাদেশের প্রথম দাবাড়ূ : বিশ্বনাথ আনন্দ
> বিশ্ব দাবা চ্যাম্পিয়নশিপ চালু হয় : ১৮৮৬ সালে
> দাবায় বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ ফিদে মাষ্টার : নওরোজ ফারহান নূর
মুষ্টিযুদ্ধ (বক্সিং) :
> বক্সিংয়ের উদ্ভাবক : থিসিয়াস
> বক্সিংয়ে দ্য গ্রেটেষ্ট বলা হয় : মোহাম্মদ আলীকে
> আধুনিক অলিম্পিকে মুষ্টিযুদ্ধ অন্তর্ভূক্ত হয় : ১৯০৪ সালে
> বর্তমানে বক্সিংয়ে অবিসংবাদিত চ্যাম্পিয়ন : লেনক্স লুইস (ইংল্যান্ড)
> আধুনিক আইনে প্রথম বিশ্ব হেভিওয়েট মুষ্টিযুদ্ধ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় : ১৮৯২ সালে
> মুষ্টিযোদ্ধা মাইক টাইসনের বর্তমান নাম : মালিক আবদুল আজিজ
> ডববিসি শতাব্দীর সেরা ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব হিসেবে পুরষকৃত করেছে : মোহাম্মদ আলীকে
> বক্সিংয়ে দ্রুততম দ্য কুইকেষ্ট বলা হয় : মোহাম্মদ আলীর কন্যা লায়লা আলীকে
> মুষ্টিযুদ্ধের পিতা বলা হয় : জ্যাক ব্রাউটনকে তিনিই প্রথম মুষ্টিযুদ্ধের নিয়ম-কানুনের প্রবর্তক
> বিশ্ববিখ্যাত মুষ্টিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলীর যে কন্যা সমপ্রতি পেশায় প্রবেশ করেন তার নাম : লায়লা আলী
> বক্সিংয়ের ইতিহাসে প্রথম নারী বনাম পুরুষ লড়াই অনুষ্ঠিত হয় : অক্টোবর ১৯৯৯
ব্যাডমিন্টন খেলার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য
> ব্যাডমিন্টন খেলার জন্ম : ১৮৬০ সালে
> ব্যাডমিন্টন খেলার উৎপত্তি : ইংল্যান্ডে
> ব্যাডমিন্টন (একক) কোর্টের মাপ : ৪৪ ফুট * ১৭ ফুট
> ব্যাডমিন্টন (দ্বৈত) কোর্টের মাপ : ৪৪ ফুট * ২০ ফুট
> ব্যাডমিন্টন নেটের প্রস্ত' : ২১/ ফুট
> BWF ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়ন শুরু হয় : ১৯৭৭ সালে
> ব্যাডমিন্টন কমনওয়েলথ গেমসে অন্তর্ভূক্ত হয় : ১৯৬৬ সালে
> ব্যাডমিন্টন অলিম্পিকে অন্তর্ভূক্ত হয় : ১৯৯২ সালে
> মাটি থেকে ব্যাডমিন্টন নেটের উচ্চতা : ফুট
> ব্যাডমিন্টন ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন (BWF ) গঠিত হয় : ১৯৩৪ সালে (সদর দপ্তর কুয়ালালামপুর, মালয়েশিয়া)
> পুরুষদের আন্তর্জাতিক ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় : টমাস কাপ
> বিশ্ব ব্যাডমিন্টন (নারী) প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় : উবের কাপ
> থমাস কাপ, টেঙ্কু আবদুর রহমান কাপ, বিশ্বকাপ, ইয়োনেক্স কাপ ট্রফিগুলো কোন খেলার সাথে জড়িত : ব্যাডমিন্টন
> স্মেশ কথাটা ব্যবহৃত হয় : ব্যাডমিন্টন খেলায়
> উবের কাপ শুরু হয় : ১৯৫৬ সালে
> ব্যাডমিন্টনগ্রান্ডেম্লামবিজয়ী প্রথম খেলোয়াড় : ইন্দোনেশিয়ার সুশি সুসান্তি
Previous Post
Next Post
Related Posts

0 comments: