নির্বাচিত সংবাদ!

শনিবার, ১৮ জুন, ২০১১

বাংলা ব্যাকরণ ও সাহিত্য বিষয়ক প্রস্তুতি-১

> লোকসাহিত্যের প্রাচীনতম শাখা : ছড়া
> বাংলা সাহিত্যে সাহিত্য সম্রাটবলা হয় : বঙ্কিমচন্দ্রকে
> ময়মনসিংহ গীতিকাসম্পাদনা করেন : দীনেশচন্দ্র সেন
> বাংলা টপ্পা গানের জনক : নিধু বাবু
> চর্যাপদের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পদ লেখেন : ভুসুক পা, ৮টি
> স্বাধীনতা হীনতায় কে বাঁচিতে চায় হেচরণটির রচয়িতা : রঙ্গলাল বন্দোপাধ্যায়
> আমীর হামজা ও জঙ্গনামা গ্রন' দুটির লেখক : ফকীর গরীবুল্লাহ
> কাহ্ন পা রচিত পদের সংখ্যা : ১৩টি
> ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের প্রথম বই : বেতাল পঞ্চবিংশতি
> যে মহিলা কবি সর্বপ্রথম রামায়ণ অনুবাদ করেন : চন্দ্রাবতী
> মর্সিয়া সাহিত্য গড়ে উঠেছিল : অষ্টাদশ শতকে
> অন্নদা মঙ্গল কাব্যের রচয়িতা : ভারতচন্দ্র রায় গুণাকর
> বাংলা সাহিত্যে সনেটে প্রবর্তক : মাইকেল মধুসূদন দত্ত
> মুসলমান নারী জাগরণের অগ্রদূত : বেগম রোকেয়া
> বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন যুগ বলা হয় : (৬৫০-১২০০) খ্রি: পর্যন্ত সময়কালকে
> চর্যাপদের আবিষ্কারক : হরপ্রসাদ শাস্ত্রী
> পুতুল নাচের ইতিকথাউপন্যাসটির রচয়িতা : মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়
> বাংলা সাহিত্যের কণিষ্ঠতম সন্তান বলা হয় : ছোট গল্পকে
> শানি-পুরের কবি বলা হয় : মোজাম্মেল হককে
> ঠকচাচাচরিত্রটি যে উপন্যাসের : আলালের ঘরের দুলাল
> কবি কঙ্কন উপাধী যার : মুকুন্দরাম চক্রবর্তীর
> বাংলা একাডেমীকে বলা হয় : জাতির মননের প্রতীক
> মধ্যযুগের শ্রেষ্ঠ মুসলিম কবি : আলাওল
> মহিলা রামায়ণকার বলা হয় : কবি চন্দ্রাবতীকে
> ডাকঘরনাটকটির রচয়িতা : রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
বিগত পরীক্ষার প্রশ্ন:
> ফররুখ আহমদের শ্রেষ্ঠ কাব্যগ্রন্থের নাম : সাত সাগরের মাঝি(২৯ তম BCS)
> অনল প্রবাহরচনা করেন : সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী(২৯ তম BCS)
> রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শেষের কবিতা’ : একটি উপন্যাস(২৪ তম BCS)
> বত্রিশ সিংহাসনএর রচয়িতা : মৃত্যুঞ্জয় বিদ্যালঙ্কার (২৬ তম BCS)    
> বাংলা গীতি কবিতায় ভোরের পাখি বলা হয় : বিহারীলাল চক্রবর্তীকে (১১ তম BCS)
> বাংলা সাহিত্যে সনেটে প্রবর্তক : মাইকেল মধুসূদন দত্ত(২৫ তম BCS)
> মুসলমান নারী জাগরণের অগ্রদূত : বেগম রোকেয়া (২৯ তম BCS)
> জাহান্নাম হতে বিদায়উপন্যাসটি হলো : মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক উপন্যাস (২৮ তম BCS)
> পুঁথি সাহিত্যের প্রাচীন লেখক : দৌলত কাজী(১১ তম BCS)
> কবরনাটকটির লেখক : মুনীর চৌধুরী(১০ তম BCS)
> বাংলা ব্যাকরণ প্রথম রচনা করেন : মনো এল দ্য আসসুম্প সাও
> কুলাশব্দটি : দেশি শব্দ
> তৎসব উপসর্গ : ২০টি
> যে স্বরবর্ণের সংক্ষিপ্ত রূপ নেই : অ
> বাংলা বর্ণমালায় পূর্ণমাত্রার বর্ণের সংখ্যা : ৩২টি
> বাংলা বর্ণমালায় অর্ধমাত্রা বর্ণের সংখ্যা : ৮টি
> স্বরবর্ণের সংক্ষিপ্ত রূপকে বলে : কার
> ব্যঞ্জবর্ণের সংক্ষিপ্ত রূপকে বলে : ফলা
> দমন করা যায় না যাকে : অদম্য
> , সু, বি, নিএই চারটি উপসর্গ পাওয়া যায় : বাংলা ও তৎসম উপসর্গে
> ছাত্ররা বল খেলে : কর্মে শূণ্য
> অর্থানুসারে বাংলা শব্দ : ৩ প্রকার
> বিষাদসিন্ধুযে সমাস : কর্মধারায় সমাস
> সাধু ভাষা : গুরুগম্ভীর ও তৎসম শব্দ বহুল
> ক থেকে ম পর্যন-২৫টি ধ্বনিকে বলা হয় : স্পর্শ ধ্বনি
> লবণএর সঠিক সন্ধি বিচ্ছেদ হবে : লো + অন
> যজ্ঞএর সঠিক সন্ধি বিচ্ছেদ : যজ + ন
> ভূতের ব্যাগারবাগধারাটির অর্থ : অপচয়
> যে মেয়ের বিয়ে হয়নিএককথায় হবে : অনূঢ়া
> লাঠালাঠি’ : ব্যতিহার বহুব্রীহি সমাস
> ইস্কাপন, টেক্কা, রুইতন, হরতনইত্যাদি : ওলন্দাজ শব্দ
> চ, , , ঝ হলো : তালব্য বর্ণ
বিগত পরীক্ষার প্রশ্ন:
> সমাস ভাষাকে : সংক্ষেপ করে (২৯ তম BCS)
> উপরোধশব্দের অর্থ : অনুরোধ (২৮ তম BCS)
> পদ বলতে বোঝায় : বিভক্তিযুক্ত শব্দ ও ধাতু (২০ তম BCS)
> সন্ধি ব্যাকরণের যে অংশের আলোচ্য বিষয় : ধ্বনিতত্ত্ব (১৮ তম BCS)
> পেরেশানশব্দটি : ফারসি (২৬ তম BCS)  
> চাঁদশব্দটি : তদ্ভব শব্দ (১০ তম BCS)
> ক্রিয়া পদের মূল অংশকে বলা হয় : ধাতু (১২ তম BCS)
> বাংলা ভাষায় খাঁটি উপসর্গ আছে : ২১টি (২৭ তম BCS)
> নবান্নশব্দটি যে প্রক্রিয়ায় গঠিত : সন্ধি (২৬ তম BCS)
> বামেতরশব্দটির অর্থ : ডান (২৩ তম BCS)